কাতার কোম্পানি ভিসা বেতন কত

কাতার যেতে চাচ্ছেন অথচ কাতার কোম্পানি ভিসা বেতন কত তা জানেন না। তাহলে আজকের পোস্ট থেকে জেনে নিন কাতার বেতন কত ২০২৪ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য। 

মধ্যপ্রাচ্যের উন্নয়নশীল রাষ্ট্র কাতার। প্রত্যেক বছর কাতার সরকার বাংলাদেশ ও ভারত থেকে অনেক শ্রমিক আমদানি করে থাকে। 

বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে অনেক মানুষ কাতার যাচ্ছে কোম্পানি ভিসা নিয়ে। আপনিও যদি কাতার কোম্পানির ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে কাতার কোম্পানি ভিসা বেতন কত তা জানতে হবে। চলুন এ বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক। 

কাতার কোম্পানি ভিসা ২০২৪ 

কাতারের অন্যান্য ভিসার চেয়ে কোম্পানি ভিসার সুযোগ-সুবিধা একটু বেশি। কারণ কোম্পানির ভিসা নিয়ে কাতার যেতে পারলে থাকা খাওয়া একদম ফ্রিতে পাওয়া যায়। 

তবে এ সমস্ত সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার জন্য সরকারিভাবে কাতার যাওয়ার চেষ্টা করবেন। বর্তমানে অনেক দালাল সংস্থা সাধারণ মানুষকে বোকা বানাচ্ছে কাতার ভিসা নিয়ে। 

তাই কোম্পানি ভিসা নিয়ে কাতারে যাওয়ার জন্য সরাসরি বাংলাদেশে অবস্থিত কাতার দূতাবাসে যোগাযোগ করুন। 

কাতার কোম্পানি ভিসা বেতন কত?

কাতার কোম্পানি ভিসার বেতন ১,০০০ থেকে ২,০০০ রিয়াল। যা বাংলাদেশে টাকায় ৩২,০০০ থেকে ৬৪,০০০ টাকা। 

তবে যে সকল কর্মীর কোম্পানি কাজের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা আছে তাদের বেতন ২,০০০ থেকে ৩,০০০ রিয়েল পর্যন্ত হয়ে থাকে। 

এছাড়া যে সব কর্মীরা ওভারটাইম করে তাদের মাসিক বেতন ৫০ থেকে ৯০ হাজার টাকা। 

তাই কাতারে কোম্পানি ভিসার মাসিক বেতন সঠিক কত টাকা তা বলা মুশকিল। তারপরও আপনাদের কিছুটা ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। 

কাতার কোম্পানি ভিসা কবে খুলবে? 

অনেকেই প্রশ্ন করেন কাতার কোম্পানি ভিসা কবে খুলবে? মূলত কাতার কোম্পানি ভিসা পুনরায় চালু হয়েছে। তাই আপনি কাতার যেতে চাইলে নিকটস্থ কাতার দূতাবাসে গিয়ে যোগাযোগ করুন। 

কাতার যেতে কত টাকা লাগে ২০২৪

যে সকল বাঙালি কাতার যেতে ইচ্ছুক তাদের প্রধান প্রশ্ন কাতারে যেতে কত টাকা লাগে। সাধারণত আমাদের দেশ থেকে বেশিরভাগ মানুষ ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় কাতার যায়।

সরকারিভাবে কাতার যেতে ৪-৬ লাখ টাকা লাগে। তবে বেসরকারি এজেন্সির মাধ্যমে কাতার যেতে ৬-৮ লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ হয়। 

তাই সবসময় চেষ্টা করবেন সরকারিভাবে কাতার পাড়ি জামানোর। এছাড়া সরকারিভাবে কাতার যাওয়া ১০০% নিরাপদ। 

কাতারে কোন কাজের চাহিদা বেশি

সাধারণত কাতারে দক্ষ শ্রমিকের চাহিদা অনেক বেশি। বিশেষ করে নির্মাণ শ্রমিক, ড্রাইভার, ওয়েটার, শেফ, ইলেকট্রিশিয়ান, ডেলিভারি ম্যান ও ক্লিনার কাজের চাহিদা সবচেয়ে বেশি।কাতারে কোন কোন কাজের চাহিদা বেশি দেখে নিন।

  • কনস্ট্রাকশন 
  • বিভিন্ন কোম্পানির কাজ
  • হোটেল ও রেস্টুরেন্ট জব 
  • ড্রাইভার 
  • ইলেকট্রিশিয়ান 
  • ডেলিভারি ম্যান 
  • মেকানিক্যাল 
  • আইটি সেক্টর 
  • ফুড প্যাকেজিং 
  • ক্লিনার

কাতার ড্রাইভিং ভিসা বেতন কত?

যাদের ড্রাইভিং কাছের দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ও লাইসেন্স রয়েছে তারা ইচ্ছা করলে ভালো বেতনে কাতারে চাকরি করতে পারেন। 

কাতারে একজন ড্রাইভারের মাসিক বেতন ন্যূনতম ৭০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা। এছাড়া অনেক ড্রাইভার এর থেকেও বেশি টাকা আয় করে। 

কাতার রেস্টুরেন্ট ভিসা বেতন কত?

কাতার রেস্টুরেন্ট ভিসার বেতন অনেকটাই নির্ভর করবে আপনার কাজের ওপর। আপনি যদি রেস্টুরেন্টে ওয়েটারের কাজ করেন তাহলে মাসিক নূন্যতম ৫০ থেকে ৮০ হাজার ইনকাম করতে পারবেন। 

আবার রেস্টুরেন্টে আপনি যদি শেফ এর কাজ করেন তাহলে বেতন অন্যতম ৭০ থেকে ১ লক্ষ টাকা। 

এছাড়া রেস্টুরেন্ট চাকরি করলে খাওয়া থাকা তো ফ্রি পাচ্ছেন সাথে কাস্টমারের বোনাসও পাওয়া যায়। 

কাতারে শ্রমিকের বেতন কত?

কাতরে দক্ষ শ্রমিকের বড্ড অভাব। এ কারণে আপনি যদি একজন দক্ষ শ্রমিক হয়ে থাকেন। তাহলে কাতারে গিয়ে ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

কাতারে একজন শ্রমিকের মাসিক বেতন ন্যূনতম ৪০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা। আবার কোন কোন শ্রমিক মাসে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করছে। 

কাতারে সর্বনিম্ন বেতন কত ২০২৪ 

কাতারে একজন কর্মীর সর্বনিম্ন বেতন ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। মূলত যারা নতুন অবস্থায় কাতার যায় তাদের বেসিক বেতন ৪০ হাজার টাকা। তবে সেই কর্মী যদি ওভারটাইম করে তাহলে ৫০-৬০ হাজার টাকা আয় করতে পারবে। 

কাতার যেতে কত বছর বয়স লাগে?

কাতারে যাওয়ার জন্য কর্মীর বয়স খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কাজের ভিসায় কাতার যেতে আবেদনকারীর বয়স ন্যূনতম ২০ ও সর্বোচ্চ ৩৮ বছর হতে হবে। 

এছাড়া আপনি যদি টুরিস্ট বা ভিজিট ভিসা নিয়ে কাতার যান তাহলে বয়সের কোন সমস্যা নেই । তবে যারা শিশু বা যাদের ভোটার আইডি কার্ড হয়নি তাদের পিতা-মাতার ভোটার আইডি কার্ড লাগবে। 

সম্মানিত পাঠক বৃন্দ এই ছিল আজকে কাতার কোম্পানি ভিসা বেতন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা। আজকের পোস্ট মনোযোগ সহকারে পড়লে কাতার কোম্পানি ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন।

Leave a Comment